যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২১st সেপ্টেম্বর ২০১৭

ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচির ৫ম পর্বের উদ্বোধন


প্রকাশন তারিখ : 2017-09-20

আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭ শনিবার সকাল ১০.০০ টায় জামালপুর সদরের সরকারি আশেক মাহমুদ কলেজ মাঠে ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচির ৫ম পর্বের উদ্বোধন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

 

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের যুব ও  ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী ড. শ্রী বীরেন শিকদার এমপি, এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন এবং বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী, জনাব মির্জা আজম এমপি,  অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে ৫ম পর্বের উদ্বোধন করবেন।

 

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন- যুব ও  ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের মাননীয় উপমন্ত্রী জনাব আরিফ খান জয় এমপি,  যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির মাননীয় সভাপতি জনাব মোঃ জাহিদ আহ্সান রাসেল এমপি, ভূমি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির মাননীয় সভাপতি জনাব মোঃ রেজাউল করিম হীরা এমপি, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য জনাব নাহিম রাজ্জাক এমপি, মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব মোহাম্মদ মামুনুর রশিদ জোয়ারদার, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব জনাব মোঃ আসাদুল ইসলাম, জামালপুরের জেলা প্রশাসক জনাব আহমেদ কবীর, জামালপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব ফারুক আহম্মেদ চৌধুরী ও জামালপুরের পুলিশ সুপার জনাব মোঃ দেলোয়ার হোসেন পিপিএম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক জনাব আনোয়ারুল করিম।

 

ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি সরকারের অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত একটি কার্যক্রম। বর্তমান সরকারের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে উচ্চ মাধ্যমিক ও তদূর্ধ্ব পর্যায়ের ২৪ থেকে ৩৫ বছর বয়সী শিক্ষিত বেকার যুবক ও যুবমহিলাদের জাতি গঠনমূলক কর্মকান্ডে সম্পৃক্তকরণের মাধ্যমে অস্থায়ী কর্মসংস্থান সৃষ্টির উদ্দেশ্যে ‘ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি’ চালু করা হয়।

 

এই কর্মসূচির আওতায় শিক্ষিত বেকার যুবক ও যুব মহিলাদের দশটি সুনির্দিষ্ট মডিউলে তিন মাসের মৌলিক প্রশিক্ষণ প্রদানের পর জাতি গঠনমূলক কর্মকান্ডে সমপৃক্তকরণের মাধ্যমে ২ বছরের জন্য কর্মসংযুক্তিতে নিযুক্ত করা হয়। প্রশিক্ষণ চলাকালীন প্রত্যেক প্রশিক্ষণার্থীকে দৈনিক ১০০ টাকা হারে প্রশিক্ষণ ভাতা এবং প্রশিক্ষণোত্তর ০২ বছরের অস্থায়ী কর্মসংযুক্তিকালীন সময়ে দৈনিক ২০০ টাকা হারে কর্মভাতা প্রদান করা হয়।

 

প্রাথমিকভাবে পাইলট কর্মসূচি হিসেবে ২০০৯-২০১০ অর্থবছরে গোপালগঞ্জ, কুড়িগ্রাম ও বরগুনা এই তিনটি জেলার সকল উপজেলায় ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি বাস্তবায়ন শুরু হয়। ২য় পর্বে রংপুর বিভাগের কুড়িগ্রাম ব্যতীত ৭টি জেলার ৮টি উপজেলায়, ৩য় পর্বে ১৭টি জেলার ১৭টি উপজেলায়, ৪র্থ পর্বে ৭টি জেলার ২০টি উপজেলায় এ কর্মসূচি ধারাবাহিকভাবে বাস্তবায়িত হয়ে আসছে। ৫ম পর্বে ১৫টি জেলার ২৪টি  উপজেলা এ কর্মসূচির আওতাভুক্ত  রয়েছে।

 

ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচির আওতায় এ পর্যন্ত ১ লক্ষ ১৪ হাজার ৩৪ জনকে প্রশিক্ষণ এবং ১ লক্ষ ১১ হাজার ৬৯৯ জনকে  কর্মসংযুক্তি প্রদান করা হয়েছে। দক্ষতাবৃদ্ধিমূলক প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে দেশের শিক্ষিত যুব সম্প্রদায়ের জন্য কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং আর্থসামাজিক উন্নয়নে ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।


Share with :
Facebook Facebook